ডাউনলোড স্পীড বাড়াতে হলে প্রথমেই আপনাকে জানতে হবে যে, আপনি যেই ব্রডব্যান্ড প্রতিষ্ঠানের আওতায় ইন্টারনেট সেবা ব্যবহার করছেন তারা আপনাকে আপনার ব্যবহারের জন্যে সম্পূর্ণ স্পীড দিচ্ছে কিনা। অর্থাৎ আপনি ১ এম.বি এর লাইনে পুরো ১ এম.বি স্পীড পাচ্ছেন তো? তাহলে কিভাবে জানবেন যে আপনার ইন্টারনেট সেবাদানকারি প্রতিষ্ঠান আপনাকে প্রতিশ্রুতি অনুযায়ি সেবাপ্রদান করছে? তাই নিজের মনে আর কোন সন্দেহ না রেখে নিজেই যাচাই করে নিতে পারেন নিজের ইন্টারনেটের ডাউনলোড স্পীড। আর এর জন্যে সবচেয়ে ভালো হচ্ছে speedtest.net  যার সাহায্যে খুব সহজেই ঘরে বসেই আপনি আপনার ইন্টারনেটের স্পীড যাচাই করতে পারবেন।

মেগাবাইট আর মেগাবিট নিয়েও আমাদের অনেক ভ্রান্ত ধারনা আছে। অনেকেই এই দুটোকে একই মনে করে থাকেন কিন্তু যেটা সম্পূর্ণ ভুল।

MBps = Megabytes

Mbps = Megabits

উপরের চিত্রে আপনি লক্ষ্য করলে দেখতে পারবেন এখানে ১৩.৯৯ Mbps ডাউনলোড স্পীড দেখাচ্ছে যেটাকে ৮ দিয়ে ভাগ করলে আপনি যেই স্পীড পাবেন সেটাই হল ১.৭৫ MBps (১ মেগাবাইট = ১০২৪ কিলোবাইট। উদাহরন স্বরূপ আপনি ৫০ MB এর একটা ভিডিও ফাইল ডাউনলোড করতে আপনার ৫০ সেকেন্ড লাগবে যদি আপনার ডাউনলোড স্পীড হয় ১ MBps .

যেভাবে বাড়াবেন আপনার ইন্টারনেটের ডাউনলোড স্পীডঃ

নিয়মিত আপনার ইন্টারনেট রাউটার পর্যবেক্ষণ করুনঃ  আমরা প্রায় সময়ই ইন্টারনেট পারফরম্যন্স ল্যাগ করলে, অথবা কানেকশন ড্রপ করলে ইন্টারনেট সেবাদানকারি প্রতিষ্ঠানের উপর দোষারোপ করি যেটা মোটেও সঠিক নয়।  অনেক সময় আমার নিজের ব্যবহৃত রাউটারই আমার পারফরম্যান্স ল্যাগের কারন হয়ে দাড়ায়। তাই মাধে মাঝে ইন্টারনেট কানেকশনের পাশাপাশি আপনার ব্যবহৃত রাউটারেরও যত্ন নিবেন এবং নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করবেন।

ভাইরাস ফ্যাক্টরঃ  অনেক সময় আমাদের পিসিতে ভাইরাস থাকলে আমাদের পিসির পারফরম্যন্সের উপর প্রভাব পরতে পারে যেটা আমাদের ডাউনলোড স্পীডকে প্রভাবিত করে কিন্তু আমরা ইন্টারনেট সেবাদানকারি প্রতিষ্ঠানকে (ISP) কে দোষারোপ করি। কিন্তু আমরা যদি নিজেদের পিসির ভাইরাস নিয়মিত ক্লিন করি তাহলে সেটা আমাদের পিসির সর্বোপরি পারফরম্যন্সকে বাড়াবে এবং আমাদের ডাউনলোড স্পীডকে বৃদ্ধি করবে।

ব্যাকগ্রাউন্ড প্রোগ্রামঃ  অনেক সময় পিসির ব্যাকগ্রাউন্ড প্রোগ্রামও পিসির ডাউনলোড স্পীডকে প্রভাবিত করে। ধরুন আপনার পিসিতে ব্যাকগ্রাউন্ডে একটা উইন্ডোজের ডিফল্ট টুল ডাউনলোড হচ্ছে সেটাও আপনার ডাউনলোড স্পীডকে প্রভাবিত করছে।

প্ল্যাগ ইনঃ আপনি যদি খুব একটা বেশি পিসির মুভমেন্ট না করে থাকেন তাহলে ইন্টারনেটের ক্যাবলটি অবশ্যই আপনার পিসিতে প্ল্যাগ ইন করুন এতে আপনারই সুবিধা বেশি কারন আপনি সরাসরি স্পীড পাচ্ছেন। কিন্তু আপনি যদি রাউটারের এর মাধ্যমে আপনার পিসিতে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তাহলে আপনি ডাউনলোড স্পীড কম পাবেন। 

ক্যাবেল পরিবর্তন করুনঃ আপনার ইন্টারনেট হ্যাবের অভ্যন্তরীণ ক্যাবলের নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করুন। পুরাতন বা ছোট ক্যাবল আপনার ডাউনলোড স্পীডকে প্রভাবিত করে।

রাউটারের পাসওয়ার্ড পরিবর্তনঃ ইন্টারনেটের ডাউনলোড স্পীড যদি ড্রপ করে তাহলে রাউটার বার বার অন অফ না করে আমারা যদি রাউটারের পাসওয়ার্ড চেঞ্জ করা যায় তাহলে ডাউনলোড স্পীড আরো বেশি পাবেন।

নিয়মিত সফটওয়্যার আপডেট করুনঃ  আপনার পিসির ইন্টারনেটের সাথে সম্পর্কিত সকল সফটওয়্যারের নিয়মিত আপডেট বা হালনাগাদ করুন। যার ফলে আপনি আরো ভালো ডাউনলোড স্পীড পাবেন পাবেন।

সেরা ISP বাছাই করুনঃ ইন্টারনেটের স্পীড বেশি পেতে হলে অবশ্যই ভালো ইন্টারনেট সেবাদানকারি প্রতিষ্ঠানের সহায়তা নিতে হবে। তাই এক্ষেত্রে ISP বাছাইয়ের ক্ষেত্রে একটু খোঁজ খবর নিন। যারা কর্পোরেট ISP তাদের সেবা নেয়ার চেষ্টা করবেন এতে আপনারা যারা গ্রাহক তারা বেশি লাভবান হবেন।